অশ্রুসজল চোখে আইয়ুব বাচ্চুকে নিয়ে যা বললেন সহকর্মীরা

জাগো বাংলা ডেস্ক প্রকাশিত: ০৬:৩৬ পিএম, ১৮ অক্টোবর ২০১৮
অশ্রুসজল চোখে আইয়ুব বাচ্চুকে নিয়ে যা বললেন সহকর্মীরা

কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর হঠাৎ মৃত্যুতে গভীর শোক নেমেছেন সংগীত অঙ্গনে। লাখো ভক্তকে কাঁদিয়ে চলে যাওয়া যেন কেউই মেনে নিতে পারছেন না। বাংলাদেশের সংগীত জগতের সকলের কাছেই যেন এটি আকস্মিক একটি ধাক্কা। 

বৃহস্পতিবার সকালে বাংলাদেশের ব্যান্ড সংগীতকে এগিয়ে নেয়ার অন্যতম অগ্রপথিক আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ার পর রাজধানীর পান্থপথের স্কয়ার হাসপাতালে ছুটে আসেন সংগীত, চলচ্চিত্র ও সংস্কৃতি অঙ্গনের তারকারা।

এই কিংবদন্তি শিল্পীকে শেষবারের মতো দেখতে হাসপাতালের সামনে ভিড় জমান তার শত-সহস্র ভক্তও। এসময় আইয়ুব বাচ্চুকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন তার সংগীতাঙ্গনের সহকর্মীরা।

‘সোলস’র সদস্য পার্থ বড়ুয়া বলেছেন, কিছু বলার ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না। তিনি আমার শিক্ষক ছিলেন। আমাকে তৈরি করেছেন। গিটার শিখিয়েছিলেন। গান করতে ঢাকায় নিয়ে এসেছিলেন। কখনোই ভাবিনি তিনি এভাবে হঠাৎ করে চলে যাবেন। ওনার মতো গিটারিস্ট আর আছে কি না আমার জানা নাই। সংগীতাঙ্গন একটি সম্পদ হারালো। বাচ্চু ভাইয়ের মতো শিল্পী আর বাংলাদেশে আসবে কি না সন্দেহ আছে’।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারজয়ী নির্মাতা কাজী হায়াত জানান, ‘চলচ্চিত্রে আইয়ুব বাচ্চুকে নিয়ে এসেছিলেন নায়ক মান্না। একরকম জোর করেই। মান্নার একান্ত আগ্রহেই বাচ্চুর মতো একটি চমৎকার কণ্ঠ আমাদের সিনেমায় এসেছে। অনেক অনুরোধের পর বাচ্চু প্লেব্যাক করতে রাজি হয়েছিলো। সে গেয়েছিলো এবং ইতিহাস করে দিয়ে গেল। তার বেশ কিছু গান চলচ্চিত্রের ইতিহাসে সেরা জনপ্রিয়তার তালিকার শীর্ষে বলে আমি মনে করি।’

তিনি বলেন, ‘এভাবে চলে যাওয়ার মতো বয়স বাচ্চুর ছিলো না। আসলে মৃত্যু যে কোনো সিরিয়াল মানে না, বয়স মানে না এটাই সত্যি।’

গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর বলেন, আইয়ুব বাচ্চু রয়েছেন জনপ্রিয়তার মধ্যগগনে। তাকে হারিয়ে ব্যান্ডের গানে হাহাকার সৃষ্টি হলো। সংস্কৃতি অঙ্গনে কালো ছায়া নেমে এলো। তরুণ প্রজন্ম তার থেকে শিক্ষা নেবে সেটাই আশা করছি।’

সংগীতশিল্পী সামিনা চৌধুরী বলেন, ‘আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন একজন দেশপ্রেমিক। তিনি সবসময় স্টেজ শো শেষে সবাইকে নিয়ে জাতীয় সংগীত গাইতেন। এটা একজন শিল্পীর জন্য অনেক বড় গুণ।’

আইয়ুব বাচ্চু ক্ষণজন্মা ছিলেন উল্লেখ করে পপ তরকা ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, ‘গানের জগতের একটি অধ্যায়ের সমাপ্তি ঘটলো। তার চলে যাওয়ার ক্ষতি আর কখনোই পূরণ হবে না।’

প্রমিথিউস ব্যান্ডের কর্ণধার খালিদ করিম বিপ্লব বলেন, 'মেনে নিতে পারছি না বাচ্চু ভাই নেই, মানুষ চলে যাবে কিন্তু এভাবে অসময়ে কেন রাজা চলে গেলেন, রাজার মতো করে।'

‘আর্ক’ ব্যান্ডদলের হাসান বলেন, ‘মানুষের মনে যে সুর বাজে সেই সু্রই কণ্ঠে ধারণ করে ছিলেন আইয়ুব বাচ্চু। নতুন প্রজন্ম তাকে অনুসরণ করবে। মনে রাখবে অনেক দিন। তাকে মিস করবে সবাই। তার সৃষ্টি কর্মে তিনি থেকে যাবেন। আর কখনো তার সঙ্গে দেখা হবে না ভাবলেই মন কেঁদে উঠছে। তিনি ছিলেন সংগীতের উজ্জ্বল নক্ষত্র।’

চিত্রনায়ক ফেরদৌস বলেন, ‘যখন সংগীতের নতুন একটি ধারা তৈরি হচ্ছিলো ঠিক তখন বাচ্চু ভাই চলে গেলেন। সংগীতে বড় একটা শূন্যতা তৈরি হলো।’

অভিনেত্রী তিশা বলেন, ‘বাচ্চু ভাইয়ে সঙ্গে তো একদিন দুই দিনের পরিচয় না। অনেক দিনের সম্পর্ক। আমাদের সংগীতাঙ্গনের একজন অবিভাবককে হারালাম আমরা’

সংগীতশিল্পী শুভ্রদেব বলেন, আইয়ুব বাচ্চুর মতো এমন গায়ক ও কম্পোজার একশ বছরে বাংলাদেশ পাবে কি না সংশয়। আইয়ুব বাচ্চুর মতো গিটার বাজাতে এশিয়ার অনেকে জানেন না। তার কম্পোজ ছিল দুর্দান্ত। সব থেকে বড় গুন ছিল সবার সাথে আন্তরিক ব্যবহার করতেন তিনি।

ব্যান্ডশিল্পী থেকে অভিনয়ে আসা সুমন পাটোয়ারী বলেন, আমরা যখন প্রেম করেছি তখন বাচ্চু ভাই, আমরা যখন ব্যর্থ হয়েছি তখন বাচ্চু ভাই, আবার আমরা যখন ছ্যাকা খেয়েছি তখনও বাচ্চু ভাই। আসলে বাচ্চু ভাই আমাদের শৈশব।’

নগর বাউল খ্যাত তারকা জেমস জানান, সুখে-দুঃখে, মান-অভিমানে পথ চলেছি আমরা। প্রায় চল্লিশ বছর একসঙ্গে ছিলাম। আজ সকালবেলা যখন শুনলাম উনি নেই এই কথাটি কিছুতেই বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। তার সাথে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক ভাষায় বলে প্রকাশ করার মতো নয়। আপনের চেয়ে আপন বলে যদি কিছু থাকে বাচ্চু ভাই আমার সেটাই ছিলো।’

বাচ্চুর দীর্ঘদিনের বন্ধু এন্ড্রু কিশোর বলেন, একজন অসাধারণ শিল্পী ছি‌লেন বাচ্চু। তার ম‌তো গিটার প্রে‌মিক আ‌মি কখনই দে‌খি‌নি। হা‌তে টাকা থাক‌লেই গিটার কিনত। যারা গিটা‌রিস্ট হতে চায়, শিল্পী হ‌তে চায়। তাদের উ‌চিৎ বাচ্চু‌কে অনুসরণ করা।’

সংগীতশিল্পী তাহসান লিখেছেন,
বিধাতা যখন তোমার হাতে
কোটি হৃদয়ে আন্দোলন
ফিরিয়ে নিলো সেই বিধাতা
আজ বুক চিরে শুধু আস্ফালন
বাচ্চু ভাই এর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

বিএইচ