শিক্ষকদের বেতন নির্ধারণে জটিলতা : যা বলছে গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়

জাগো বাংলা রিপোর্ট প্রকাশিত: ০৫:৫৫ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০
শিক্ষকদের বেতন নির্ধারণে জটিলতা : যা বলছে গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়
ফাইল ছবি

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের ১৩তম বেতন গ্রেড দ্রুত কার্যকর করা হবে। সফটওয়্যার সংক্রান্ত সমস্যার কারণে উন্নীত গ্রেডে বেতন-ভাতা প্রদান করা সম্ভব হচ্ছে না। এটি আপডেট কাজ শেষ হলেই বাড়তি সুবিধা প্রদান করা হবে।

সোমবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তি এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের বেতন গ্রেড-১৪ (প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত) এবং বেতন গ্রেড-১৫ (প্রশিক্ষণবিহীন) থেকে ১৩ গ্রেডে উন্নীত করে উচ্চধাপে নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্তমানে সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা নির্ধারিত সফটওয়্যার ‘আইবাস++’ এর মাধ্যমে সম্পন্ন করা হয়ে থাকে। প্রাথমিক শিক্ষকদের উচ্চধাপে বেতন নির্ধারণের লক্ষ্যে ‘আইবাস++’ সফটওয়্যার আপগ্রেডের কাজ চলমান রয়েছে, যা শিগগিরই সম্পন্ন হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মাঠ পর্যায়ে ‘আইবাস++’ এ বেতন নির্ধারণে সাময়িক অসুবিধার বিষয়টি মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি গোচর হয়েছে। আশা করা হচ্ছে অতিদ্রুত ‘আইবাস++’ আপগ্রেডেশন সম্পন্ন হবে এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষকরা উচ্চধাপে বেতন নির্ধারণ করতে পারবে।

সারাদেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাড়ে তিন লাখ সহকারী শিক্ষকের বেতনভাতা এখনও ১৩তম গ্রেডে ফিক্সেশন (নির্ধারণ) হয়নি। ফলে তারা আগের গ্রেডেই বেতন পাচ্ছেন। বর্তমানে তা সমাধানের কথা জানালো সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়।