কুকের বিদায়ী টেস্টে রোমাঞ্চকর জয় ইংল্যান্ডের

পাঁচ টেস্ট সিরিজ ৪-১ ব্যবধানে জিতেছে ইংল্যান্ড। ভারতের বিপক্ষে রোমাঞ্চকর টেস্ট ১১৮ রানে জিতেছে স্বাগতিকরা। ম্যাচটি ছিলো ওপেনার অ্যালিস্টার কুকের বিদায়ী ম্যাচ। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আর দেখা যাবে না এ কিংবদন্তিকে।

ইংলিশদের ছুড়ে দেয়া ৪৬৪ রানের অসম্ভব লক্ষ্যের পেছনে দারুণভাবে ছুটেছে ভারত। লোকেশ রাহুল ও ঋষভ পান্ত সেঞ্চুরি করে কাঁপন ধরিয়েছিলেন ইংলিশদের বুকে। যদিও শেষ পর্যন্ত ৩৪৫ রানে অলআউট হয়ে ম্যাচ হেরেছে ভারত। তাই পাঁচ ম্যাচের সিরিজ আগেই জিতে নেয়া ইংল্যান্ড মিশন শেষ করলো ৪-১ ব্যবধানে।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই সিরিজের সব ম্যাচ খেলেছেন রাহুল। তবে আগের চার টেস্টে একটা হাফসেঞ্চুরিও ছিল না তার। শেষ ম্যাচে এসে যেন মনের সব ক্ষোভ মেটালেন তিনি! অসাধারণ ব্যাটিংয়ে ভারতকে লড়াইয়ে রাখলেন শেষ পর্যন্ত। তার সঙ্গে পান্ত টেস্ট ক্যারিয়ারের শুরুতেই দেখালেন তিনি ‘লম্বা রেসের ঘোড়া’। অসাধারণ ব্যাটিংয়ে তুলে নিলেন ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি।

৪৬৪ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে চতুর্থ দিনেই ভারত ৫৮ রান তুলতে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেললে ম্যাচের ফল এক রকম নিশ্চিত হয়ে যায়। চতুর্থ দিনের শুরুতে আজিঙ্কা রাহানে ৩৭ রানের ইনিংস খেলে একটু আশা জাগানোর পর হানুমা বিহারি শূন্য রানে ফিরলে হার সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায় ভারতের জন্য।

তবে সেটা হতে দেননি রাহুল-পান্ত। ষষ্ঠ উইকেট ২০৪ রানের জুটি গড়ে জয়ের স্বপ্নও দেখাতে শুরু করেন ভারতকে। আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে এগিয়ে নিয়ে যান সফরকারীদের। আর এই সময়ে রাহুল তুলে নেন টেস্ট ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি। আর পান্ত পান তার অভিষেক সেঞ্চুরি।

জুটি ভাঙতে না পেরে ইংলিশদের মনে যখন সংশয়ের মেঘ ওড়াউড়ি করছিল, ঠিক তখনই আদিল রশিদের আঘাত। সোজা আঘাত করে স্টাম্পে, তাতে ১৪৯ রানে থামে রাহুলের চমৎকার ইনিংসটি।

তার আউটের পর অন্তত ড্রয়ের আশা বাঁচিয়ে রেখেছিলেন পান্ত। কিন্তু তিনিও শিকার হলেন রশিদের। ১১৪ রানে শেষ হয় তার লড়াকু ইনিংসের।

এরপর স্যাম কারানের আঘাত। ইশান্ত শর্মাকে ৫ রানে ফেরানোর পর রবীন্দ্র জাদেজাকে উইকেটরক্ষক জনি বেয়ারস্টোর গ্ল্যাভসবন্দী করেন ১৩ রানে। আর মোহাম্মদ সামির স্টাম্প উড়িয়ে ইংল্যান্ডের জয় নিশ্চিত করেন জেমস অ্যান্ডারসন। এই শিকারেই আবার তিনি পরিণত হন টেস্ট ক্রিকেটের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি পেসারে। গ্লেন ম্যাকগ্রাকে সরিয়ে অ্যান্ডারসনই এখন টেস্টের সবচেয়ে বেশি উইকেট পাওয়া পেসার।

তবে ম্যাচসেরার পুরস্কার উঠেছে বিদায় নেয়া কুকের হাতে। সেটা তার প্রাপ্যও। প্রথম ইনিংসে ৭১ রান করার পর দ্বিতীয় ইনিংসে খেলেছেন ১৪৭ রানের ইনিংস। জয় ও ম্যাচসেরার পুরস্কারে ক্যারিয়ার শেষ- এর চেয়ে ভালো বিদায় আর কী হতে পারে!

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ইংল্যান্ড: ৩৩২ ও ৪২৩/৮ (ডিক্লে.)

ভারত: ২৯২ ও ৩৪৫ (রাহুল ১৪৯, পান্ত ১১৪, রাহানে ৩৭; অ্যান্ডারসন ৩/৪৫, কারান ২/২৩, রশিদ ২/৬৩)।

ফল: ইংল্যান্ড ১১৮ রানে জয়ী।

সিরিজ: পাঁচ ম্যাচের সিরিজ ইংল্যান্ড ৪-১ ব্যবধানে জয়ী।

ম্যাচ সেরা: অ্যালিস্টার কুক।

সিরিজ সেরা: স্যাম কারান ও বিরাট কোহলি।

এইচএচ

© Copyright 2018 - All Rights Reserved - by Jagobangla